ভ্রমণবন্ধু
schengen-zone vromonbondhu

শেনজেন ভিসা চালু হচ্ছে ৫৪ দেশে, বাদ পড়লো বাংলাদেশ

করোনা ভাইরাসের মহামারীর কারণে বন্ধ করে দেয়া হয়েছিল শেনজেন কান্ট্রিস হিসেবে পরিচিত ইউরোপীয় ইউনিয়নের (ইইউ) ২৬টি দেশের সীমান্ত। তবে ইউরোপে করোনার প্রাদুর্ভাব কমায় জুলাই মাসের শুরু থেকে এসব দেশের সীমান্ত খুলে দেয়ার কথা। আপাতত ভারত, মিয়ানমারসহ বিশ্বের ৫৪ দেশের নাগরিকদের জন্য শেনজেন ভিসা বৈধ হবে। তালিকায় প্রতিবেশী দেশ ভারত থাকলেও বাদ পড়েছে বাংলাদেশ।

আন্তর্জাতিক সংবাদমাধ্যম গালফ নিউজের খবরে বলা হয়, ইউরোপীয় ইউনিয়নের পাসপোর্ট-ফ্রি জোন ‘শেনজেন’। এই শেনজেন জোনে কোনো সীমান্ত নিয়ন্ত্রণ নেই। ইউরোপীয় ইউনিয়নের বেশির ভাগ দেশ এর অধীনে রয়েছে। দেশগুলোতে যেকোনো ব্যক্তিকে শেনজেনভুক্ত এলাকার যেকোনো সদস্য দেশে সফর করতে দেয়া হয়। তবে সেখানে প্রবেশের বিষয়ে সর্বশেষ সরকারি বিবৃতি এ সপ্তাহে পরের দিকে ঘোষণা করার কথা। ধারণা করা হচ্ছে, ১ জুলাই থেকে তা বাস্তবায়ন হবে।

করোনাভাইরাস পরিস্থিতির মধ্যে এ অঞ্চলে প্রবেশ নিয়ে ইউরোপীয় ইউনিয়নের কর্মকর্তারা জানান, আক্রান্ত প্রতিটি দেশের পরিস্থিতি, করোনাভাইরাসের বিরুদ্ধে গৃহীত পদক্ষেপ, সংক্রমণ নিয়ন্ত্রণে সক্ষমতা, বিধিনিষেধ প্রত্যাহার হয়েছে কিনা-এসব বিষয়ের ওপর ভিত্তি করে এই দেশগুলোর তালিকা আপডেট করা হবে।

তবে শেনজেন জোনের আনুষ্ঠানিক ওয়েবসাইটে দেওয়া বিজ্ঞপ্তিতে তালিকায় রাখা দেশ নির্বাচনে তিনটি শর্ত আমলে নেয়ার কথা জানানো হয়। এগুলো হলো;

১। আলোচ্য দেশের সংক্রমণ পরিস্থিতি এবং তা মোকাবিলায় সরকারি পদক্ষেপ,
২। সফরকারীরা যেন ভাইরাসের বিস্তার না করতে পারেন, তা নিশ্চিত করার যথাযথ উদ্যোগ,
৩। এবং ওই দেশের পক্ষ থেকে ইউরোপীয় ইউনিয়ন ভ্রমণে নিষেধাজ্ঞা আরোপ করা হলে।

বিশ্বের যে ৫৪ দেশের নাগরিকরা শেনজেন ভিসায় ভ্রমণ করতে পারবে:

আলবেনিয়া, আলজেরিয়া, অ্যান্ডোরা, অ্যাঙ্গোলা, অস্ট্রেলিয়া, বাহামাস, ভুটান, বসনিয়া ও হার্জেগোভিনা, কানাডা, চীন, কোস্টারিকা, কিউবা, উত্তর কোরিয়া, ডোমিনিকা, মিসর, ইথিওপিয়া, জর্জিয়া, গিয়ানা, ভারত, ইন্দোনেশিয়া, জামাইকা, জাপান , কাজাখস্তান, কসোভো, লেবানন, মরিশাস, মোনাকো, মঙ্গোলিয়া, মন্টিনিগ্রো, মরোক্কো, মোজাম্বিক, মিয়ানমার, নামিবিয়া, নিউজিল্যান্ড, নিকারাগুয়া, পালাউ, প্যারাগুয়ে, রুয়ান্ডা, সেন্ট লুসিয়া, সার্বিয়া, দক্ষিণ কোরিয়া, তাজিকিস্তান, থাইল্যান্ড, তিউনিসিয়া, তুরস্ক, তুর্কমেনিস্তান, উগান্ডা, ইউক্রেন, উরুগুয়ে, উজবেকিস্তান, ভ্যাটিকান সিটি, ভেনিজুয়েলা, ভিয়েতনাম ও জাম্বিয়া।

এদিকে বাংলাদেশে শেনজেন ভিসা বন্ধ হওয়ায় ব্যবসায় বড় নেতিবাচক প্রভাব পড়বে বলে মনে করছেন দেশের ব্যবসায়ীরা। শেনজেন ভিসায় যারা যান, তারা খুব সহজেই শেনজেন অধিভুক্ত ২৭ দেশে ভ্রমণ করতে পারেন। চাকুরী, শিক্ষার্থী, ব্যবসায়ী খুব সহজেই এক দেশ থেকে আরেক দেশে চলাফেরা করতে পারেন।

প্রসঙ্গত, গত ১১ জুন ইউরোপীয় কমিশনের শেনজেন সীমান্ত ১৫ জুন থেকে পুনরায় খুলে দেয়ার বিষয়ে সুপারিশ উত্থাপন করে। এতে ইউরোপীয়রা মহামারির আগে শেনজেন অঞ্চলে যেভাবে অবাধ চলাচল করতে পারতেন, সীমান্ত খুলে দেয়া হলে একইভাবে অবাধ চলাচলের সুপারিশ করা হয়।

উল্লেখ্য, ইউরোপীয় দেশগুলোকে নিয়ে একটি একীভূত অঞ্চল তৈরি করে সবার যাতায়াত সহজ করা লক্ষ্যে ১৯৮৫ সালে লুক্সেমবার্গের শেনজেন শহরে একটি চুক্তি স্বাক্ষরিত হয়। সেই চুক্তির ধারাবাহিকতায় সৃষ্টি হয়েছে সেনজেন এলাকা এবং সেনজেন ভিসা। ইউরোপের অধিকাংশ এলাকা এই সেনজেন অঞ্চলের অন্তর্ভুক্ত। এই ভিসা নিয়ে ৯০ দিনের জন্য বেড়ানো বা ব্যবসা সংক্রান্ত প্রয়োজনে ইউরোপ ঘুরে আসা যায়। শেনজেন’র অধীনে রয়েছে ইউরোপীয় ইউনিয়নের বেশির ভাগ দেশ।

শেনজেনভুক্ত দেশগুলো হলো- অস্ট্রিয়া, বেলজিয়াম, চেক প্রজাতন্ত্র, ডেনমার্ক, এস্তোনিয়া, ফিনল্যান্ড, ফ্রান্স, জার্মানি, গ্রিস, হাঙ্গেরি, আইসল্যান্ড, ইতালি, লাটভিয়া, লিচেটেনস্টেইন, লিথুয়ানিয়া, লুক্সেমবার্গ, মালটা, নেদারল্যান্ডস, নরওয়ে, পোল্যান্ড, পর্তুগাল, স্লোভাকিয়া, স্লোভেনিয়া, স্পেন, সুইডেন ও সুইজারল্যান্ড।

Tags

Add Comment

You must be logged in to post a comment.

Sign In ভ্রমণবন্ধু

For faster login or register use your social account.

or

Account details will be confirmed via email.

Reset Your Password