ভ্রমণবন্ধু

রোয়াইলবাড়ি দুর্গ - Hosted By

Not review yet
3
Add Review Viewed - 241

ব্রহ্মপুত্র নদের পূর্বাঞ্চলে অবস্থিত নেত্রকোণা জেলা বাংলাদেশের মধ্যাঞ্চলের ময়মনসিংহ বিভাগের একটি প্রশাসনিক এলাকা। এই জেলার ইতিহাস প্রাচীন ঐতিহ্যে ভরপুর। নেত্রকোণা জেলায় বেশ কিছু প্রাচীন স্থাপত্য রয়েছে। সেসব স্থাপত্যগুলো অধিকাংশই এখন ধ্বংসপ্রাপ্ত। তবে কিছু স্থাপত্য এখনো ইতিহাসের সাক্ষী হয়ে আছে। তেমনই একটি ঐতিহাসিক স্থাপত্য ‘রোয়াইলবাড়ি দূর্গ’।

এটি জেলার কেন্দুয়ায় অবস্থিত একটি প্রাচীন দূর্গ ও বাংলাদেশের অন্যতম একটি প্রত্নতাত্ত্বিক স্থাপনা। দূর্গটি ‘কোটবাড়ী দুর্গ’ নামেও পরিচিত। প্রাচীন রোয়াইলবাড়ি দূর্গের স্থাপনা হিসেবে বর্তমানে ছাদবিহীন কিছু ইমারত অবশিষ্ঠ রয়েছে। ৪৬ একর জমির উপর অবস্থিত পুরো দূর্গটি পূর্ব-পশ্চিম দিকে লম্বা ও প্রাচীর দ্বারা বিভক্ত। দূর্গের প্রাচীর নির্মাণে ব্যবহার করা হয়েছে ইট। দূর্গে রয়েছে একটি পুকুর, দুটি ঢিবি, একটি কবরস্থানসহ বেশকিছু প্রাচীন স্থাপনার ধ্বংসাবশেষ। খননকাজ পরিচালনাকালে এখানে প্রাচীন ইটের ভংগ্নাংশ, মৃৎপ্রাত্র, মূর্তি ও মূল্যবান কিছু পুরাকীর্তি পাওয়া যায়।

রোয়াইলবাড়ি দূর্গের নির্মাণকাল সম্পর্কে সঠিক কোনো তথ্য পাওয়া যায়নি। তবে প্রত্নতত্ত্ববিদগণদের মধ্যে কেউ কেউ এটিকে সুলতানী আমলের স্থাপনা বলে মনে করেন। অনেকে আবার মনে করেন এটি জনৈক কোনো মুঘল জেনারেলের তৈরি স্থাপনা। ৮০’র দশকে আবিষ্কৃত এ স্থাপনাটি ১৯৮৭ সালে বাংলাদেশ প্রত্নতত্ত্ব অধিদপ্তর সংরক্ষিত পুরাকীর্তি হিসেবে নথিভূক্ত করে।

দূর্গটি সংরক্ষিত ঘোষণার পর ১৯৯১-৯৩ সালে প্রত্নতত্ত্ব অধিদপ্তর এখানে খননকাজ পরিচালনা করে। এসময় দূর্গের ধ্বংসাবশেষ ছাড়াও দুটি ঢিবি আবিষ্কার করে। অনেকেই মনে করেন, সুলতান আলাউদ্দিন হুসেন শাহ্-এর পুত্র নছরত শাহ্ এ অঞ্চলে বসবাসের সময় দূর্গটি তৈরি/সম্প্রসারণ করেন। পরবর্তিতে ঈশা খাঁ ও তার পরবর্তি শাসকের আমলেও দূর্গে ব্যাপক সম্প্রসারণের কাজ করা হয়।

যেভাবে যাবেন:

‘রোয়াইলবাড়ি দূর্গ’ বেতাই নদীর তীরে কেন্দুয়া উপজেলা সদর থেকে ১৩ কিলোমিটার দক্ষিণ-পশ্চিমে রোয়াইলবাড়ি নামক স্থানে অবস্থিত। দূর্গটি দেখতে দেশের যেকোনো স্থান থেকে বাসযোগে নেত্রকোনা যেতে হবে। সেখান থেকে কেন্দুয়া। কেন্দুয়া পৌরসভা থেকে বাস/রিকশা/সিএনজিযোগে সাহিতপুর বাজার যেতে হবে। সেখান থেকে অটো/ইঞ্জিনচালিত যন্ত্র দিয়ে সরাসরি রোয়াইলবাড়ি বাজারে যাওয়া যায়। বাজার থেকে পায়ে হেঁটে বা রিকশায় যাওয়া যায় দূর্গে। রাতযাপনের জন্য নেত্রকোনা শহরে আবাসিক হোটেল আছে।

Tags

Add Reviews & Rate

You must be logged in to post a comment.

Sign In ভ্রমণবন্ধু

For faster login or register use your social account.

or

Account details will be confirmed via email.

Reset Your Password