ভ্রমণবন্ধু

রায়েরকাঠি জমিদার বাড়ি - Hosted By

Not review yet
6
Add Review Viewed - 281

পিরোজপুর জেলায় বেশ কিছু পুরাকীর্তি স্থাপনা রয়েছে। এসব স্থাপনা ভ্রমণপ্রিয় মানুষদের বেশ আকৃষ্ট করে। তেমনই একটি স্থাপনা ‘রায়েরকাঠি জমিদার বাড়ি’। প্রায় ৩৫০ বছর আগে উৎপত্তি হয়েছিল জমিদার বংশের, আর সেই সুবাদেই এখানে প্রতিষ্ঠিত হয় এই জমিদার বাড়িটি। এই জমিদার বাড়িতে রয়েছে একটি কালীমন্দির ও শিবমন্দির।

ষোড়শ শতাব্দীর মাঝামাঝি সময়ে রাজা রুদ্র নারায়ণ রায় চৌধুরী রাজবাড়ি ও মন্দির প্রতিষ্ঠা করেন। রক্ষণাবেক্ষণের অভাবে মূল রাজবাড়িটি ধ্বংসপ্রাপ্ত হলেও কালের সাক্ষী হয়ে আছে ৩৫৭ বছরের পুরোনো কালীমন্দির এবং ৭৫ ফুট উচ্চতার ১১টি মঠ।

এই জমিদার বাড়িতে নির্মিত হয় রাজভবন, নহবৎখানা, অতিথিশালা, নাট্যশালা এবং অসংখ্য মন্দির। রাজবাড়ীতে ছিলো ছোট বড় প্রায় দু’শ অট্টালিকা। তারমধ্যে ৪০ বা ৫০টি গগণচুম্বী অট্টালিকা রাজবাড়ির শোভাবর্ধন করতো। বর্তমানে ভালো এবং ধ্বংসপ্রাপ্ত মিলিয়ে ৭টির মত ভবন রয়েছে। জমিদার বাড়িতে ১৬৫৮ সালে কালিমন্দির নির্মাণ করা হয়। এখানে রয়েছে প্রায় ২৫ মণ ওজনের শিব লিঙ্গ। এটি উপমহাদেশের সর্ববৃহৎ শিবলিঙ্গের একটি। এছাড়া এখানে বর্তমানে শিব মন্দির রয়েছে ১০টির মত।

পিরোজপুর শহর থেকে তিন কিলোমিটার উত্তরে রায়েরকাঠি গ্রামে রাজবাড়িটির অবস্থান। ২০০ একর জমির ওপর প্রতিষ্ঠিত রাজবাড়ির পূর্ব দিকে রয়েছে কালীমন্দির ও শিবমন্দির। রাজপ্রথা বিলুপ্তির পরে চালু হয় জমিদারি প্রথা। আর রুদ্র নারায়ণের উত্তরসূরিরা রাজা থেকে পরিণত হন জমিদারে। একসময় রাজবাড়িতে মহিষ বলি দিয়ে ঘটা করে কালী পূজা হতো। তবে জমিদারি প্রথা বিলুপ্তির পর রাজবাড়ি তার জৌলুশ হারায়।

বর্তমানে রাজবাড়ির প্রধান ফটক, রাজাদের বসবাসের বহুতল ভবনগুলো, বিচারালয়, কাচারিঘর, জলসাঘর, অন্ধকূপ ভেঙে গেছে। মোগলদের মন্দিরের নকশায় নির্মিত মঠগুলোও নষ্টের পথে। মঠের দেয়ালে মাটির অলংকরণ ক্ষয়ে এর গায়ে শেওলা ও লতাপাতা জন্মেছে। নবরত্ন মঠসহ তিনটি মঠের কিছু অংশ ভেঙে গেছে। একটি মঠে সংরক্ষিত আছে কষ্টিপাথরের মহামূল্যবান শিবমূর্তি।

যেভাবে যাবেন:

বাসে বা নৌপথে পিরোজপুর যাওয়া যায়। বাসে ঢাকা বা যেকোনো জায়গা থেকে প্রথমে পিরোজপুর শহরে আসতে হবে। জমিদারবাড়িটি পিরোজপুরের মূল শহরে অবস্থিত হওয়ায় রিকশা, অটো রিকশা নিয়ে ‘রায়েরকাঠি জমিদার বাড়ি’ যাওয়া যায়।

এছাড়া সদরঘাট থেকে লঞ্চে করেও যাওয়া যাবে পিরোজপুর। হুলারহাট ঘাট থেকে অটোরিকশা করে পিরোজপুর হয়ে রায়েকাঠি যেতে হবে। জনপ্রতি ভাড়া দিয়ে অথবা রিজার্ভ অটোরিকশা নিয়ে চলে যেতে পারবেন জমিদার বাড়ি ভ্রমণে।

Listing Features

Tags

Add Reviews & Rate

You must be logged in to post a comment.

Sign In ভ্রমণবন্ধু

For faster login or register use your social account.

or

Account details will be confirmed via email.

Reset Your Password