ভ্রমণবন্ধু

রাজবন বিহার - Hosted By

Not review yet
3
Add Review Viewed - 226

পাহাড়, নদী ও লেকবেষ্টিত একটি বৈচিত্রময় জনপদ রাঙ্গামাটি জেলা। এখানকার প্রাকৃতিক রূপ-বৈচিত্র্যে জেলাটি খ্যাতি পেয়েছে ‘রূপের রানী’ হিসেবে। বাংলাদেশের ভ্রমণ প্রিয় মানুষের অন্যতম গন্তব্যস্থান এটি। অনেকের মতে রাঙ্গামাটি না দেখলে পুরো দেশটাই না কি অদেখা রয়ে যায়।

রাঙ্গামাটিতে বেশকিছু জনপ্রিয় ভ্রমণ স্থান রয়েছে। তারমধ্যে ‘রাজবন বিহার’ অন্যতম। এটি বৌদ্ধ সম্প্রদায়ের অন্যতম তীর্থস্থান। বৌদ্ধদের জন্য বিশেষ গুরুত্বপূর্ণ এই বিহার বর্তমানে আন্তর্জাতিক বৌদ্ধ তীর্থস্থান হিসেবে পরিণত হয়েছে।

জানা যায়, ১৯৭৭ সালে বনভান্তে লংগদু এলাকা থেকে স্থায়ীভাবে বসবাসের জন্য রাঙামাটি আসেন। বনভান্তে এবং তার শিষ্যদের বসবাসের জন্য ভক্তকূল এই বিহারটি নির্মাণ করে দেন। চাকমা রাজা দেবাশিষ রায়ের তত্ত্বাবধানে রাজবন বিহার রক্ষণাবেক্ষনের পূর্ণাঙ্গ কমিটি গঠিত হয়। প্রতিবছর পূর্ণিমা তিথিতে রাজবন বিহারে বৌদ্ধ ভিক্ষুদের কঠিন চীবর দান অনুষ্ঠান অনুষ্ঠিত হয়। রাজবন বিহারে অনুষ্ঠিত এ কঠিন চীবর দান শুধু বাংলাদেশে নয়, দক্ষিণ পূর্ব এশিয়ায় সর্ববৃহৎ।

বিহারটিতে রয়েছে একটি সুরম্য উপাসনা বিহার, আধুনিক স্থাপত্য নকশায় নির্মিত দেশনালয়, বনভন্তের আবাসিক কুঠির ও বিশ্রামাগার, ভিক্ষু-শ্রামণদের আবাসিক ভবন, সুবৃহৎ অতিথিশালা, চংক্রমণঘর, সীমাঘর (ঘ্যাংঘর), অনুষ্ঠানমঞ্চ, সপ্ততলাবিশিষ্ট স্বর্গঘর, ১০ শয্যাবিশিষ্ট হাসপাতাল, অনেকগুলো ভাবনা কুটির, রন্ধনশালা, বনভন্তে ও ভিক্ষুসঙ্ঘের ভোজনালয়, নিজস্ব লাইব্রেরি ও প্রেস। এছাড়া নিরাপত্তার জন্য পুরো বিহারের চতুর্দিকে রয়েছে সীমানা প্রাচীর।

রাঙামাটি শহরের প্রাণকেন্দ্রে বিহারটি অবস্থিত হলেও শহরের যান্ত্রিক কোলাহল এখানে অনুপস্থিত। কাকচক্ষু জলে ঘেরা কাপ্তাই হ্রদ আর সবুজ বনানীর ছায়ায় অবস্থিত রাজবন বিহার। পর্যটকদের বিহার চত্ত্বরে টুপি মাথায় প্রবেশ নিষেধ।

যেভাবে যাবেন:

ঢাকার ফকিরাপুল মোড় ও সায়দাবাদে রাঙামাটিগামী অসংখ্য বাস কাউন্টার রয়েছে। বাসগুলো সাধারণত সকাল ৮ টা থেকে ৯ টা এবং রাত ৮ টা ৩০ মিনিট থেকে রাত ১১ টার মধ্যে রাঙামাটির উদ্দেশ্যে ঢাকা ছাড়ে। এসি ও নন-এসি দুই ধরণের বাসই পাওয়া যায়। বাসগুলো শহরের রিজার্ভ বাজার নামক স্থান পর্যন্ত যায়। রিজার্ভ বাজার লঞ্চ ঘাট থেকে জলপথে এবং স্টেডিয়ামের পাশ্ববর্তী সড়ক পথে পাঁচ মিনিটেই বিহারে পৌঁছানো যায়।

Tags

Add Reviews & Rate

You must be logged in to post a comment.

Sign In ভ্রমণবন্ধু

For faster login or register use your social account.

or

Account details will be confirmed via email.

Reset Your Password