ভ্রমণবন্ধু

পৌনে তিন আনি জমিদার বাড়ি - Hosted By

Not review yet
2
Add Review Viewed - 186

বাংলাদেশে অনেক আগেই বিলুপ্ত হয়েছে জমিদারি প্রথা। কিন্তু রয়ে গেছে তাদের স্থাপনা। সেইসব জমিদার বাড়িতে এখনো মিশে আছে জমিদারি। বাড়ির আঙিনায় ছড়িয়ে-ছিটিয়ে আছে অতীতের গল্পকথা। তেমনই এক জমিদার বাড়ি শেরপুরের ‘পৌনে তিন আনি জমিদার বাড়ি’।

এই জমিদার বাড়িটি তেমন বিখ্যাত নয়। তাইতো শান্ত নিরিবিলি পরিবেশের এই জমিদার বাড়িটিতে পর্যটকদের তেমন একটা ভিড় দেখা যায় না। কিন্তু চমৎকার এই জমিদার বাড়িতে একবার গেলে যেন মনটাই পড়ে থাকবে সেখানেই। চমৎকার নকশা আর স্থাপত্যশৈলীর পৌনে তিন আনি জমিদার বাড়ি যেকোনো ভ্রমণপ্রিয় মানুষকে মুগ্ধ করে।

জমিদার সত্যেন্দ্র মোহন চৌধুরী ও জ্ঞানেন্দ্র মোহন চৌধুরীর বাড়িকে বলা হত পৌনে তিন আনি জমিদার বাড়ি। গ্রীক স্থাপত্যের অনুকরণে নির্মিত স্থাপত্যটি এখনো অক্ষত অবস্থার সাক্ষ্য বহন করছে জমিদারী আমলের।

এ বাড়িটির নির্মাণ কাল গোপীনাথ মন্দির নির্মাণেরও অনেক পূর্বে। সুপ্রশস্ত বেদী। প্রবেশ পথে অনেকগুলো ধাপ। প্রবেশদ্বারের দুই প্রান্তে অনেকগুলো অলংকৃত স্তম্ভ। স্তম্ভগুলির নিচ থেকে উপর পর্যন্ত কারুকাজ খচিত নকশা। কার্ণিশেও বিভিন্ন প্রকারের মটিভ ব্যবহার করা হয়েছে। যা ভবনটিকে অনেক আকর্ষণীয় করে তুলেছে।

চার পাশের স্তম্ভগুলো চতুষ্কোণ বিশিষ্ট এবং এতে বর্গাকৃতি ফর্ম ব্যবহার করা হয়েছে। আস্তরণ ও পলেস্তারে চুন ও সুড়কির ব্যবহার লক্ষণীয়। ছাদগুলিতে গতানুগতিকভাবে লোহার রেলিং এর সাথে চুন সুড়কির ঢালাই দেয়া। বাড়ির সাথে আছে একটি সুন্দর পুকুর। পুকুর ঘাটটি যেন এখনো আগের মতোই আছে।

যেভাবে যাবেন:

মহাখালী বাসটার্মিনাল থেকে শেরপুরের ড্রিমল্যান্ড, তুরাগ, আনন্দ অথবা অন্যান্য সার্ভিস রয়েছে। নামবেন নবীনগর বাসস্ট্যান্ডে। সেখান থেকে স্থানীয়দের জিজ্ঞাসা করলেই দেখিয়ে দেবে জমিদার বাড়ি যাওয়ার পথ।

Tags

Add Reviews & Rate

You must be logged in to post a comment.

Sign In ভ্রমণবন্ধু

For faster login or register use your social account.

or

Account details will be confirmed via email.

Reset Your Password