ভ্রমণবন্ধু

দিনাজপুর রাজবাড়ি - Hosted By

Not review yet
3
Add Review Viewed - 344

সাহিত্য এবং সংস্কৃতি আর ঐতিহ্যে ভরপুর দিনাজপুরের ইতিহাস বেশ সুপ্রাচীন ও সমৃদ্ধ। বিশেষজ্ঞদের মতে, ভারতের লাখ লাখ বছরের প্রাচীন স্থানগুলোর মাটির সাথে সাদৃশ্য পাওয়া যায় এই দিনাজপুরের মাটির। এছাড়া দিনাজপুর জেলা পুরাকীর্তি স্থাপনার জন্য বেশ সমৃদ্ধ। এসব স্থাপনার মধ্যে দিনাজপুর রাজবাড়ি অন্যতম।

এটি দিনাজপুর জেলার সদর উত্তর-পূর্ব দিকে অবস্থিত। রাজারামপুর গ্রামের সন্নিকটে এই স্থানটি “রাজ বাটিকা” নামে বিশেষভাবে পরিচিত। ইতিহাস থেকে জানা যায়, দিনাজপুর রাজবাড়ি রাজা দিনাজ স্থাপন করেন। কিন্তু অনেকের মতামত পঞ্চদশ শতকের প্রথমার্ধে ইলিয়াস শাহীর শাসনামলে সুপরিচিত “রাজা গণেশ” এই বাড়ির স্থপতি। সপ্তদশ শতাব্দীর শেষের দিকে শ্রীমন্ত দত্ত চৌধুরী দিনাজপুরের জমিদার হন। কিন্তু শ্রীমন্ত দত্ত চৌধুরীর ছেলের অকাল মৃত্যুর হওয়াতে, তার ভাগ্নে “সুখদেব ঘোষ” তার সম্পত্তির উত্তরাধিকার হন।

আসলে বর্তমানে দিনাজপুর রাজবাড়ি বলতে এর অবশিষ্টাংশকে বুঝায়। এর বেশিরভাগ অংশ ধ্বংস হয়ে গেছে। শুধু গুটিকয়েক স্থাপনা এখন বিদ্যমান। রাজবাড়ির প্রবেশ পথে পশ্চিমমুখী একটি মিনার আকৃতির বিশাল তোরণ আছে। রাজবাড়ির সীমানার মধ্যে তোরণের কিছু দূরে বামদিকে একটি উজ্জ্বল রঙ করা কৃষ্ণ মন্দির এবং ডানদিকে রাজবাড়ির বহিঃমহলের কিছু ধ্বংসাবশেষ আছে। রাজবাড়ির সীমানার ভেতরে আরেকটি তোরণ আছে, যার মাধ্যমে রাজবাড়ির প্রধান বর্গাকার অংশে প্রবেশ করা হয়। রাজবাড়ির প্রধান অংশের পূর্বদিকে আরেকটি সমতল ছাদবিশিষ্ট মন্দির আছে। যার মধ্যে অনেক হিন্দু দেবতার প্রতিমা রয়েছে।

রাজবাড়ি প্রধানত তিনটি মহল বা ব্লকের সমন্বয়ে গঠিত। এই মহলগুলো হলো: আয়না মহল, রাণি মহল ও ঠাকুরবাটি মহল। এর পাশাপাশি আরো কিছু অপ্রধান স্থাপনা আছে; যা জমিদার পরিবারের বিভিন্ন রাজা ও উত্তরাধিকার কর্তৃক বিভিন্ন সময়ে প্রতিষ্ঠিত। এই রাজবাড়ির সীমানায় আরো কিছু মন্দির, বিশ্রামাগার, দাতব্য চিকিৎসালয়, পানির ট্যাঙ্ক ও আমলাদের বাসস্থান স্থাপিত হয়। দিনাজপুর রাজবাড়ির ভূমির মোট আয়তন ১৬.৪১ একর; যার মধ্যে পূর্ব ও পশ্চিম দিকে ২ বৃহৎ পানির চৌবাচ্চা/ট্যাঙ্ক, মঠ, বাগান, কাঁচারী ঘর, টেনিস কোর্ট ও কুমারের বাড়ি অন্তর্ভুক্ত।
এই বিশাল রাজবাড়িটি একটি আকর্ষণীয় ঐতিহাসিক ঐতিহ্য। এই রাজবাড়িটি বাংলাদেশ সরকারের প্রত্নতত্ত্ব বিভাগ কর্তৃক স্বীকৃত নয়। তাই এই বিশাল স্থাপনাটি অযত্নে অবহেলায় ধ্বংস হয়ে যাচ্ছে।

যেভাবে যাবেন:

ঢাকা থেকে বাস ও ট্রেন দুই পথেই যাওয়া যায়। ঢাকা থেকে দিনাজপুরগামী বাসগুলো সাধারণত ছাড়ে গাবতলী ও কল্যাণপুর থেকে। ঢাকা থেকে আসাদগেট, কলেজগেট, শ্যামলী, কল্যাণপুর, টেকনিক্যাল মোড় অথবা গাবতলী থেকে শ্যামলি, হানিফ, নাবিল, বাবলু এন্টারপ্রাইজ সহ অনেক বাস সরাসরি দিনাজপুর যায়। প্রায় সারাদিন ৩০ মিনিট বা ১ ঘণ্টা পরপর গাড়িগুলো ছাড়ে। তা ছাড়া উত্তরা থেকেও কিছু বাস দিনাজপুর যায়।

অথবা ট্রেনে যেতে চাইলে ঢাকার কমলাপুর রেলওয়ে স্টেশন থেকে আন্তঃনগর ট্রেন দ্রুতযান এক্সপ্রেস ছাড়ে সন্ধ্যা ৭টা ৪০ মিনিটে। আর আন্তঃনগর একতা এক্সপ্রেস ছাড়ে সকালে। দিনাজপুর শহর থেকে অটোরিকশায় পৌঁছে যাওয়া যায় এ রাজবাড়িতে।

Listing Features

Tags

Add Reviews & Rate

You must be logged in to post a comment.

Sign In ভ্রমণবন্ধু

For faster login or register use your social account.

or

Account details will be confirmed via email.

Reset Your Password