ভ্রমণবন্ধু

চুয়াডাঙ্গার আট কবর - Hosted By

Not review yet
2
Add Review Viewed - 223

মুক্তিযুদ্ধের স্মৃতি বিজড়িত ঐতিহাসিক স্থান আট কবর। এটি বাংলাদেশের চুয়াডাঙ্গা জেলার দামুড়হুদা উপজেলায় অবস্থিত একটি গণকবর। বাংলাদেশের স্বাধীনতা যুদ্ধের সময় ৮ জন মুক্তিযোদ্ধার মৃতদেহ এখানে কবর দেয়া হয় বলে এর নামকরণ করা হয়েছে আট কবর।

ইতিহাস থেকে জানা যায়, ১৯৭১ সালের ৩ আগস্ট কমান্ডার হাফিজুর রহমান জোয়ার্দ্দারের নেতৃত্বে একদল মুক্তিযোদ্ধা চুয়াডাঙ্গার দামুড়হুদার জপুর ক্যাম্পে অবস্থান নেয়। ৪ আগস্ট মুক্তিযোদ্ধারা এ ক্যাম্পে কুবাদ খাঁ নামের এক পাক দালালকে ধরে আনেন। পাঁচ আগস্ট সকালে কুবাদ খাঁর দু’জন লোক ক্যাম্পে এসে গুজব খবর দেয়- রাজাকাররা গ্রামের পাকা ধান কেটে নিয়ে যাচ্ছে। খবর শুনে কমান্ডার হাসানের নেতৃত্বে কয়েকজন মুক্তিযোদ্ধা ছুটে যান জপুর থেকে প্রায় দুই কিলোমিটার দূরে বাগোয়ান গ্রামে।

তারা দু’টি দলে বিভক্ত হয়ে অগ্রসর হতে থাকেন। তখন নাটুদা ক্যাম্পের পাকিস্তানি সৈন্যরা ইউকাটিং অ্যাম্বুস করে মুক্তিযোদ্ধাদের আটকে ফেলে। ফলে এখানে মুক্তিযোদ্ধাদের সঙ্গে পাকিস্তানি সৈন্যদের একটি সম্মুখ যুদ্ধ হয়। এ যুদ্ধেই শহীদ হন আট মুক্তিযোদ্ধা। পরে স্থানীয় জগন্নাথপুর গ্রামের মানুষ শহীদ এ যোদ্ধাদের দুটি গর্তে গণকবর দেন। মুক্তিযুদ্ধের এ সমাধিসৌধটি স্থানীয়দের কাছে জগন্নাথপুরের আট কবর হিসেবে পরিচিত।

আটজন শহীদ মুক্তিযোদ্ধা হচ্ছেন- হাসান জামান (গোকুলখালি, চুয়াডাঙ্গা), খালেদ সাইফুদ্দিন তারেক (পোড়াদহ, কুষ্টিয়া), রওশন আলম (আলমডাঙ্গা, চুয়াডাঙ্গা), আলাউল ইসলাম খোকন (চুয়াডাঙ্গা শহর), আবুল কাশেম (চুয়াডাঙ্গা শহর), রবিউল ইসলাম (মোমিনপুর, চুয়াডাঙ্গা), কিয়ামুদ্দিন (আলমডাঙ্গা), আফাজ উদ্দিন চন্দ্রবাস (দামুরহুদা)।

চুয়াডাঙ্গা থেকে প্রায় ৩০ কিলোমিটার দূরে এ সমাধিস্থল। ০.৬৬ একর জমির ওপর ১৯৯৮ সালে এ আট কবর কমপ্লেক্সের যাত্রা শুরু হয়। সমাধি ছাড়াও এখানে আছে- উন্মুক্ত মঞ্চ ও একটি দোতলা ভবন। এ ভবনের দেয়াল জুড়ে রয়েছে বাংলাদেশের স্বাধীনতা আন্দোলনের ধারাবাহিক ইতিহাসের ২০০টি আলোকচিত্র। এছাড়া কেউ মুক্তিযুদ্ধ নিয়ে গবেষণা করতে চাইলে এ কমপ্লেক্সে আবাসিক সুবিধাও পেতে পারবেন। এখানে একটি গ্রন্থাগারও আছে। এছাড়া চারপাশে বাগান তৈরি করে সৈন্দর্য বৃদ্ধি করা হয়েছে।

যেভাবে যাবেন:

ঢাকার গাবতলী থেকে চুয়াডাঙ্গার উদ্দেশ্যে সকাল থেকে মধ্যরাত পযন্ত বাস যায়। যেকোনো বাসে করে চুয়াডাঙ্গা শহর যেতে হবে। সেখান থেকে লোকাল বাসে আট কবর যাওয়া যায়।

Tags

Add Reviews & Rate

You must be logged in to post a comment.

Sign In ভ্রমণবন্ধু

For faster login or register use your social account.

or

Account details will be confirmed via email.

Reset Your Password