ভ্রমণবন্ধু

মির্জাপুর শাহী মসজিদ; মুঘল স্থাপত্যের অনন্য নিদর্শন - Hosted By

Not review yet
3
Add Review Viewed - 446

মির্জাপুর শাহী মসজিদ পঞ্চগড় জেলার আটোয়ারী উপজেলায় অবস্থিত বাংলাদেশের অন্যতম প্রত্নতাত্ত্বিক নিদর্শন। এটি আটোয়ারী উপজেলার মির্জাপুর নামক গ্রামে অবস্থিত বলে এর নামকরণ করা হয়েছে মির্জাপুর শাহী মসজিদ। বাংলাদেশের মুঘল স্থাপত্যগুলোর মধ্যে অন্যতম পঞ্চগড়ের এই মসজিদ।

সঠিক তথ্য জানা না থাকলেও আনুমানিকভাবে ধারণা করা হয় শাহী মসজিদের বয়স প্রায় ৩৭০ বছর। মসজিদের শিলালিপি ঘেঁটে প্রত্নতত্ত্ববিদগণ ধারণা করেন মির্জাপুর শাহী মসজিদটি ১৬৫৬ সালে নির্মাণ করা হয়েছে। তবে মসজিদটি কে নির্মাণ করেছেন এটি নিয়ে ঐতিহাসিক মতপার্থক্য রয়েছে। কেউ কেউ মনে করেন, মালিক উদ্দিন নামে মির্জাপুর গ্রামেরই এক ব্যক্তি মসজিদটি নির্মাণ করেন। এই মালিক উদ্দিন মির্জাপুর গ্রামও প্রতিষ্ঠা করেন বলে জনশ্রুতি রয়েছে। আবার কেউ কেউ মনে করেন, দোস্ত মোহাম্মদ নামে জনৈক ব্যক্তি মসজিদটির নির্মাণ কাজ শেষ করেন।

৪০ ফুট দৈর্ঘ্য এবং ২৫ ফুট প্রস্থের এই মসজিদটি মোগল স্থাপত্য রীতির বৈশিষ্ট্যে ভরা। সুসজ্জিত গম্বুজের শীর্ষবিন্দু ক্রমহ্রাসমান বেল্ট দ্বারা যুক্ত। গম্বুজের চার কোণায় চারটি মিনার রয়েছে। সামনের দেয়ালে দরজার দু’পাশে গম্বুজের সাথে মিল রেখে দু’টি মিনার দৃশ্যমান। এর চার দেয়ালে ইসলামি টেরাকোটা ফুল ও লতাপাতার নকশায় পরিপূর্ণ। মসজিদের দেয়ালে ব্যবহার করা ইটগুলো চিকন, রক্তবর্ণ ও বিভিন্নভাবে অলঙ্কৃত। দেয়ালের মধ্যবর্তী দরজায় ফারসি লিপি খচিত ক্ষুদ্র কালো ফলক সংস্থাপিত রয়েছে।

ফলকের ভাষা ও লিপি অনুযায়ী বুঝা যায়, এই মসজিদটি মোগল সম্রাট শাহ আলমের শাসনকালে নির্মিত। মসজিদের সামনে তিনটি বড় দরজা আছে। উত্তর ও দক্ষিন দেয়ালে কারুকার্য ও বর্ণিল নকশা করা। মসজিদদের ভেতরে খোদাই করা ফুল, লতাপাতা, কুরআনের আয়াত সংবলিত ক্যালিগ্রাফি তুলির ছোঁয়ায় সুসজ্জিত। এসব খোদাই করা কারুকার্য বিভিন্ন রঙে বিভিন্ন ভাবে সাজানো। এ ধরনের কারুকার্য মণ্ডিত নকশা ইরানের মসজিদ ও প্রাচীন অট্টালিকার মাঝে বিদ্যমান রয়েছে।

মির্জাপুর শাহী মসজিদের সামনে একটি উন্মুক্ত খোলা জায়গা রয়েছে। খোলা জায়গার এক পাশে রয়েছে সুসজ্জিত পাকা তোরণ। তোরণের উভয় পাশে আকর্ষণীয় নকশা ও খাজ করা স্তম্ভ রয়েছে। স্তম্ভের মাঝে চ্যাপ্টা গম্বুজ, তোরণকে অনিন্দ্য সুন্দর করে তুলেছে। মির্জাপুর শাহী মসজিদ যে কারিগর ও শ্রমিকেরা নির্মাণ করেছেন তাদের গভীর আন্তরিকতার ছাপ রয়েছে এতে। যে কারণে অনেক বছর পরেও মসজিদের গাঁথুনি, দেয়াল, প্লাস্টার, নকশা ও কারুকাজ শক্ত ও মজবুতভাবে দাঁড়িয়ে রয়েছে।

দেশের যেকোনো জেলা থেকে বাস, ব্যক্তিগত গাড়ি বা ট্রেনে যাওয়া যায় মির্জাপুর শাহী মসজিদ পরিদর্শনে। পঞ্চগড় থেকে শাহী মসজিদের দূরত্ব প্রায় ১৮ কিলোমিটার। রয়েছে পাকা রাস্তা। এখান থেকে মাইক্রো, কার, মোটরসাইকেল অথবা অল্প খরচে রিকশা-ভ্যানে যাওয়ার ব্যবস্থা রয়েছে। মির্জাপুর শাহী মসজিদের আশপাশে যদিও থাকার ব্যবস্থা নেই, তবে পঞ্চগড় শহরে এসি, নন-এসি আবাসিক হোটেলে থাকার সুব্যবস্থা রয়েছে। আছে রুচিসম্মত খাওয়ার ব্যবস্থা। প্রতি বছর পর্যটকদের ভিড়ে মুখরিত শাহী মসজিদ এলাকা।

Tags

Add Reviews & Rate

You must be logged in to post a comment.

Claim listing: মির্জাপুর শাহী মসজিদ; মুঘল স্থাপত্যের অনন্য নিদর্শন

Sign In ভ্রমণবন্ধু

For faster login or register use your social account.

or

Account details will be confirmed via email.

Reset Your Password