ভ্রমণবন্ধু

পটুয়াখালী; দেশের ‘সাগরকন্যা’ খ্যাত জেলা - Hosted By

Not review yet
6
Add Review Viewed - 349

বাংলাদেশের ‘সাগরকন্যা’ খ্যাত জেলা পটুয়াখালী। আমাদের দেশের সর্বদক্ষিণের সমুদ্র সৈকত কুয়াকাটা এ জেলারই ঐতিহ্য বহন করে। অপরূপ সৌন্দর্যের অধিকারী এই কুয়াকটা। সূর্যোদয় ও সূর্যাস্ত এ দুটোই উপভোগ করার পর্যটন স্পট এই স্থান। দেশ-বিদেশের বিপুল পরিমান পর্যটক বছরের বিভিন্ন ঋতুতে বার বার ছুটে আসে এখানে।

পটুয়াখালী নামের উৎপত্তি নিয়ে অনেক মতভেদ রয়েছে। কোন সময় থেকে বা কিভাবে পটুয়াখালী নামকরণ হয়েছিলো তা ঠিক করে বলা কঠিন। তাছাড়া এই নামকরণ এর ব্যাপারে তেমন কোনো দালিলিক প্রমাণ নেই। পটুয়াখালী নামকরণের ক্ষেত্রে মতভেদ থাকলেও, স্বর্গীয় দেবেন্দ্র নাথ দত্তের পুরানো কবিতার সূত্র ধরে ‘পতুয়ার খাল’ থেকে পটুয়াখালী নামকরণের উত্থান বলে সকলে সমর্থন করেন।

১৭০০ সালের দিকে পর্তুগীজ জলদস্যুদের হামলায় বাকলা-চন্দ্রদ্বীপের দক্ষিণাঞ্চল প্রায় জনমানবহীন হয়ে পড়েছিল। তখন বর্তমান পটুয়াখালী শহর ছিল সুন্দরবন এবং নদীর উত্তর পাড়ে। সেখানেই ছিল লোকালয়। এখন এই উত্তর পাশের বর্তমান লাউকাঠী নদীই ছিল লোহালিয়া ও পায়রা নদীর ভাড়ানী খাল। আর এই ভাড়ানী খাল দিয়েই পর্তুগীজ জলদস্যুরা এসে গ্রামের পর গ্রামে নির্বিচারে লুণ্ঠন ও অত্যাচার চালাত। এ খাল এর নাম তখন সবার মুখে মুখে পতুয়ার খাল হিসেবে পরিচিতি পায়। পরবর্তীতে এই পতুয়ার খাল পরিবর্তিত হয়ে পটুয়াখালীর উৎপত্তি হয়। ১৯৮০ সালে ‘বরিশালের ইতিহাস’-এর লেখক সিরাজ উদ্দিন আহমেদ এই মতকে সমর্থন করেন।

১৯৬৯ সালে সাগর বিধৌত পটুয়াখালী জেলা হিসেবে আত্মপ্রকাশ করে। মোট ৮টি উপজেলা নিয়ে এই জেলা গঠিত হয়েছে। উপজেলাগুলো হল- কলাপাড়া, দুমকি, গলাচিপা, বাউফল, মির্জাগঞ্জ, রাঙ্গাবালি, দশমিনা ও পটুয়াখালী সদর।

পটুয়াখালী জেলা মৎস্য সম্পদে পরিপূর্ণ। এ জেলার খাল-বিল, পুকুর, নালা, নিম্নভূমি সবকিছুই মৎস সম্পদের জন্য খুব গুরুত্বপূর্ণ। পটুয়াখালী জেলার নদী মোহনাগুলো ইলিশ মাছের জন্য খুব বিখ্যাত। অন্যান্য স্থানের চেয়ে এ জেলার বনাঞ্চলের পরিমান খুবই কম। তবে এখানে কিছু উল্লেখযোগ্য গাছ রয়েছে যেমন, গোলপাতা, কেওড়া, কাকড়া ইত্যাদি।

এ অঞ্চলে বেশ কিছু দর্শনীয় জায়গা রয়েছে। সেগুলো হল- কুয়াকাটা সমুদ্র সৈকত, মজিদবাড়িয়া মসজিদ, ফাতরার চর, সীমা বৌদ্ধ বিহার, রাখাইন পল্লী, কাজলার চর, কানাই বলাই দীঘি, কুয়াকাটা বৌদ্ধ মন্দির, পানির যাদুঘর, হযরত ইয়ার উদ্দিন খলিফার মাজার ইত্যাদি।

Listing Features

Tags

Add Reviews & Rate

You must be logged in to post a comment.

Sign In ভ্রমণবন্ধু

For faster login or register use your social account.

or

Account details will be confirmed via email.

Reset Your Password