ভ্রমণবন্ধু

ছোট মাছের বড়া – পুষ্টিকর সুস্বাদু মুখোরোচক খাবার - Hosted By

Not review yet
2
Add Review Viewed - 196

আমাদের দেশের খাল, বিল, নদীতে নানান রকমের মাছ পাওয়া যায়। বিশেষ করে নানান রকম ছোট মাছ। যারা কাটার ভয়ে যারা মাছ খেতে চায় না, এড়িয়ে চলে। বেটে বড়া বানিয়ে দিলে তারাও চেটেপুটে খেয়ে নেবে ছোট মাছের বড়া।

আমরা প্রায় সবাই চিংড়ি মাছের বড়ার সাথে পরিচিত। কিন্তু জানেন কি ছোট মাছেরও বড়া বানিয়ে খাওয়া যায়? যারা কখনো খাননি অথবা হয়তো জানেনা যে ছোট মাছ বা মেশানো মাছ দিয়ে বড়া বানানো যায়, তাদের জন্য নতুন কিছু ট্রাই করার উপায় হতে পারে খাবারটি।

আমাদের দেশীয় ছোট মাছের বড়া যে কি টেস্টি, সেটা খেয়ে না দেখলে বুঝবেন না। রেসিপিটি দেখে খুব সহজেই বানিয়ে নিতে পারবেন ছোট মাছের বড়া। ভ্রমণবন্ধু দেশি খাবার পাঠকদের জন্য ঢাকার মিরপুর থেকে এই রেসিপিটি পাঠিয়েছেন সুরাইয়া সুবর্না

ছোট মাছের বড়া তৈরির উপকরণ:

যে কোনো ছোট মাছ (১/২ কাপ)
মসুর ডাল (১কাপ),
হলুদ গুঁড়া (১/৪ চা চামচ),
পেঁয়াজ কুচি (মাঝারি সাইজের ৪টি),
কাঁচা মরিচ কুচি (১০-১২টি),
ধনে পাতা কুচি (১ চা চামচ),
আদা বাটা (১/২ চা চামচ),
জিরা বাটা(১/২ চা চামচ),
রসুন বাটা (১/২ চা চামচ),
লবণ (পরিমাণ মতো),
তেল (পরিমাণ মতো)।

প্রস্তুত প্রণালি:

যে কোনো ছোট মাছ ভালো করে ধুয়ে লবণ, হলুদ গুঁড়া দিয়ে সেদ্ধ করে নিতে হবে। তারপর সেটা পাটায় বাটতে হবে। এবার বাটা মাছের মিশ্রনের সাথে সব উপকরণ এবং একটু হলুদ গুঁড়া ও পরিমাণমতো লবণ দিয়ে মাখিয়ে নিন। একটু বেশি মচমচে করার জন্য চালের গুঁড়া দিতে পারেন। তবে চালের গুঁড়া ছাড়াও মচমচে হয়।

এরপর একটি ফ্রাইপ্যানে তেল গরম করে নিন। এবার চুলা মাঝারি আঁচে দিয়ে একে এক বড়ার সাইজে মিশ্রন দিয়ে ভেজে নিন। বিকেলে নাস্তায়, দুপুর কিংবা রাতে খাবার পাতে রাখতে পারেন এই ছোট মাছের বড়া। চিংড়ি মাছে বড়া আমরা প্রায় সবাই খেয়েছি। তবে লোভনীয় এই ছোট মাছের বড়া কি খেয়েছেন? না খেলে আজই একবার বাসায় ট্রাই করে দেখতে পারেন।

জেনে নিন:

মলা, ঢেলা, চাঁদা, ছোট পুঁটি, কাচকি ইত্যাদি মাছে প্রচুর ক্যালসিয়াম, প্রোটিন এবং ভিটামিন ‘এ’ থাকে। শরীরের ক্যালসিয়ামের চাহিদা পূরণ করতে ছোট মাছ খাওয়া উচিত। এছাড়া ছোট মাছে প্রচুর পরিমাণ ভিটামিন ‘এ’ থাকে; যা রাতকানা, অন্ধ হয়ে যাওয়া ছাড়াও দৈনন্দিন অনেক শারীরিক সমস্যা দূর করতে সক্ষম।

এছাড়া আয়রন, প্রোটিন, ফসফরাস, ভিটামিন-এ, ভিটামিন বি২, ফ্যাটি অ্যাসিড, লাইসনি ও মিথিওনিনেরও ভালো উৎস ছোট মাছ। ক্যালসিয়ামসমৃদ্ধ ছোট মাছ ব্ল্যাডপ্রেসার কমাতে সাহায্য করে। ডায়াবেটিস রোগীদের জন্য খনিজ লবণ সমৃদ্ধ ছোট মাছ উপকারী। হৃদরোগী, স্ট্রোকের রোগী ও গর্ভবতী মা ও দুগ্ধদানকারী মায়ের জন্য ছোট মাছ খুবই উপকারী।

তবে ছোট মাছে ফসফরাসের পরিমাণ বেশি থাকায় কিডনী রোগিদের এই মাছ কম খাওয়া ভালো। এছাড়া এতে ইউরিক অ্যাসিডও বেশি, ফলে বাতের রোগীদেরও কম খাওয়া উচিত।

Tags

Promo Video

Add Reviews & Rate

You must be logged in to post a comment.

Sign In ভ্রমণবন্ধু

For faster login or register use your social account.

or

Account details will be confirmed via email.

Reset Your Password