ভ্রমণবন্ধু

বাড়ছে করোনা, ভ্রমণে সাবধানতা জরুরি

vromon

বাড়ছে করোনা, ভ্রমণে সাবধানতা জরুরি

বিশ্বের অন্যান্য দেশের মতো বাংলাদেশেও আবারো ভয়ঙ্কর হয়ে উঠছে মহামারি করোনা ভাইরাস। দেশে হঠাৎ করেই ঊর্ধ্বমুখী হচ্ছে করোনা আক্রান্তের সংখ্যা। সংক্রমণ বাড়ার পেছনে ভাইরাসের নতুন ভেরিয়েন্ট দায়ী বলে মনে করছেন বিশেষজ্ঞরা। প্রাণঘাতী এ ভাইরাসের বিস্তার নিয়ন্ত্রণে স্বাস্থ্য অধিদপ্তর ও মন্ত্রণালয় থেকে অন্যান্য মন্ত্রণালয়ে বিভিন্ন সুপারিশও পাঠানো হচ্ছে।

এদিকে করোনাকালের দীর্ঘ সময়ে ঘরবন্দী থেকে হাঁপিয়ে উঠেছেন অনেকেই। তাই দেশের বিভিন্ন পর্যটন স্পটে ভিড় জমাচ্ছেন ভ্রমণপ্রিয় মানুষগুলো। তবে মহামারির এই সময়ে নিজের এবং আশপাশের মানুষের স্বাস্থ্য নিরাপত্তার কথা মাথায় রাখা জরুরি। তাই আপনি ভ্রমণে গেলেও কিছু স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলতে হবে।

ভ্রমণে যেসব সাবধানতা জরুরি-

১. করোনার এই সময়ে শিশু ও বয়স্কদের নিয়ে ঘুরতে না যাওয়াই ভালো। এছাড়া যাদের স্থূলতা, উচ্চ রক্তচাপ, হৃদরোগ, ডায়াবেটিস, হাঁপানি, কিডনির অসুখ রয়েছে তাদেরও সাবধানে থাকতে হবে।

২. যে সব জায়গায় ভিড় কম হয়, তেমন কোথাও যাওয়ার চেষ্টা করা ভালো। একটু কম চেনা জায়গায়, যেখানে কম মানুষ তেমন কোনো জায়গায় গিয়ে কয়েকটি দিন কাটিয়ে আসতে পারেন। তবে এক সপ্তাহের বেশি সময় ভ্রমণে না থাকাই ভালো।

৩. হোটেল ঠিক করার আগে ভালোভাবে জেনে নিতে হবে ব্যবস্থাপনা সম্পর্কে। ঘর, খাওয়ার জায়গা, রান্নাঘর, সবই যেন ভালোভাবে স্যানিটাইজ করা হয়, তার খেয়াল রাখতে হবে।

৪. আপাতত বিমানে চলাফেরা করা ভালো। বদ্ধ জায়গায় বিপদ থাকে ঠিকই, কিন্তু ভিড়ের মধ্যে কম সময় কাটাতে হয়। ট্রেনে গেলে এসি কামরায় না যাওয়াই ভালো। বদ্ধ জায়গায় অতটা সময় অনেক মানুষের মধ্যে কাটালে সমস্যা হওয়ার আশঙ্কা থাকে।

৫. ভ্রমণে গেলে যথেষ্ট পরিমাণ মাস্ক, স্যানিটাইজার, তোয়ালে বা গামছা, কিছু শুকনো খাবার ও ফল সঙ্গে রাখুন।

৬. সাধারণ কিছু ওষুধ (যেমন- প্যারাসিটামল, গ্যাসের ওষুধ, অ্যামোডিস, ভিটামিন সি, অ্যাজিথ্রোমাইসিন, থার্মোমিটার এবং অক্সিমিটার) সঙ্গে রাখা ভালো।

যাত্রাপথ ও হোটেলে যেভাবে সাবধান হতে হবে-

১ শতাংশ সোডিয়াম হাইপোক্লোরাইড দিয়ে ট্রেন, বিমান, গাড়ির সিটে বসার আগে স্যানিটাইজ করে নিতে হবে। হাত পরিষ্কার করার জন্য ৭০ শতাংশ অ্যালকোহল দেয়া স্যানিটাইজার রাখতে হবে।

ট্রেন, বাস, বিমান, গাড়িতে সব সময়ে মাস্ক পরে থাকা জরুরি।

হোটেলকর্মীরা মাস্ক ও গ্লাভস পরেছেন এবং ঘন ঘন হাত স্যানিটাইজ করছেন কি না, দেখে নেয়া দরকার।

অনেকেরই মনে হবে এ কাজ কঠিন। তবে সময়টাও সহজ নয়। এত নিয়ম মানতে গিয়ে যদি বেড়ানো কিছুটা কম হয়, তাতেও চলবে। কিন্তু ভ্রমণে যাওয়ার ক্ষেত্রে এই বিষয়গুলো মাথায় রাখেতই হবে।

আরো পড়ুন:

মার্চে চালু হচ্ছে কোভিড-১৯ ট্র্যাভেল পাস

Tags

Add Comment

You must be logged in to post a comment.

Sign In ভ্রমণবন্ধু

For faster login or register use your social account.

or

Account details will be confirmed via email.

Reset Your Password